২০২১ সালের ডিসেম্বরে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে যান চলাচলের জন্য পদ্মা সেতু খুলে দেওয়ার লক্ষ্য

২০২১ সালের ডিসেম্বরে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে যান চলাচলের জন্য পদ্মা সেতু খুলে দেওয়ার লক্ষ্য সামনে রেখে ক্রমেই দ্রুতগতিতে এগিয়ে যাচ্ছে সেতুর কাজ।

ইতিমধ্যে সেতুর সড়ক ও রেল অংশের স্লাব বসানোর কাজও এগিয়েছে অনেকদূর।

সর্বশেষ স্প্যান বসানোর পর এই কাজে আরও গতি আসবে। একই সঙ্গে চলবে সেতুর দুই প্রান্তে সংযোগ সড়ক নির্মাণের কাজও। পদ্মা সেতুর কারণে দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের ভাগ্য খুলে যাচ্ছে।

সেতুকে ঘিরেই মানুষের জীবনযাত্রার মানও বদলাচ্ছে। সেখানে বিশ্বমানের অলিম্পিক ভিলেজ, বেনারসি তাঁতপল্লী, রাজউকের উদ্যোগে আইকন টাওয়ার, দেশের মধ্যে একমাত্র ন্যাশনাল জুডিশিয়াল একাডেমিসহ বড় বড় প্রকল্প নির্মিত হচ্ছে। সরকারি উদ্যোগের পাশাপাশি স্থানীয় জনগণও বড় বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলছে।

বিশ্ব নেতৃত্বে শেখ হাসিনা এখন একটি অনুকরণীয় নাম। ১৭ কোটি মানুষের এই দেশে দুর্যোগ দুর্বিপাক যেখানে নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার সেখানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করোনা ভাইরাসের গভীর আঁধার থেকে দেশের মানুষকে নতুন দিনের সূর্যালোকে নিয়ে আসতে নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন।

১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতাসীন হওয়ার পর পদ্মায় সেতু নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেলিনে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী সেতু নির্মাণের জন্য প্রাক-সম্ভাব্যতা যাচাই শুরু হয় ১৯৯৮ সালে। ২০০১ সাল থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত জাপানি অর্থ সহায়ক সংস্থা (জাইকা) সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের কাজ করে।

ওই সময়েই ২০০১ সালের ৪ জুলাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা নদীর ওপর সেতু নির্মাণের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। যার মধ্য দিয়ে সেতু নির্মাণের বীজ বপন করা হয়।

................... Social Sharing .................