অনেকেই খুব কম বয়সেই প্রবাস জীবনে প্রবেশ করে

অনেকেই খুব কম বয়সেই প্রবাস জীবনে প্রবেশ করে ।

এর মধ্যে ১৮ বছর থেকে শুরু করে ২৫ বছরেরই বেশী হবে। কয়েক বছর বিদেশ করার পর করে একটি বিয়ে এরপর আল্লাহুর রহমতে চলে আসে বেবি। শুরু হয়ে গেল সংসার জীবন পাশাপাশি টেনশন কিভাবে ছেলে-মেয়েকে মানুষের মতো মানুষ করা যায় কিভাবে তাদের সুন্দর ভবিষ্যৎ গঠন করা যায়।

এদিকে ছেলে-মেয়ে বড় হতে হতে নিজের বয়স চলে যায় মোটামুটি ৪০ এর কৌঠায়। তখন ভাবতে থাকে আর দশটা বছর বিদেশ করব, আলহামদুলিল্লাহ্  সংসার তো মোটামুটি গোছানো হয়েছে এখন ভবিষ্যতের জন্য কিছু টাকাপয়সা হলেই বিদেশ জীবন শেষ করব।

ঠিক প্ল্যান মোতাবেক বিদেশ করতে করতে বয়স ৫০ এর কৌঠায় চলে আসে। এবার সত্যি সত্যিই প্রবাস জীবনের ইতি টেনে বেচারা চলে যায় নিজ জন্ম ভূমিতে। কিন্তু দেশে যাবার পর একি হলো !

বয়সের সাথে সাথে আর প্রবাসে একাকী জীবন কাটিয়ে বেচারার মেজাজ একদম খিটখিটে হয়ে গিয়েছে কারও কথাই যেন সহ্য হয়না। স্ত্রী বলে এই লোক বিদেশ ছিলো তখনই ভাল ছিলো আর সন্তানদের কথা বাবার বকবক তো একদম অসহ্য !

কিন্তু বেচারার এমন খিটখিটে মেজাজ কিন্তু এই স্ত্রী সন্তানের সুখের জন্যই হয়েছে অথচ আজ বেচারা সবার কাছে আপদ। মাঝখান থেকে হারিয়েছে জীবনের মূল্যবান অনেক সময়। এরই নাম প্রবাস আর প্রবাস জীবন সত্যিই কেড়ে নেয় মানুষের জীবনের অনেক বড় মূল্যবান সময়।

কাজেই এখনও যাহারা এ জীবনে আসেন নাই অনুরোধ যদি পারেন নিজ জন্ম ভূমিতে কিছু করার চেষ্টা করুন হোক তা অতি নগণ্য।

হাদিসের ভাষা অনুযায়ী আমাদের বয়স ৬০ থেকে ৭০ বছর। এর মধ্যে আল্লাহুর রহমতে কেউ কম কেউ বেশি দিন বাঁচে। পুরো জীবনটাই টাকার পিছনে ছুটলাম পরিণতিতে হলাম সবার নিকট আপদ কিন্তু আমল না করে শুধু টাকার পেছনে ছুটে যদি আপদ হয়ে থাকি তাহলে পরকালে আমল না থাকার কারণে রয়েছে কঠিন বিপদ।

আল্লহ আমাদেরকে নিজ জন্ম ভূমিতে কর্ম সংস্হানের ব্যবস্থা করে দিক।

•••••

যেখানে থাকুন সুস্থ থাকুন নিরাপদ আশ্রয়ে থাকুন

 

SHARE THIS POST